183 জন দেখেছেন
"শরীর চর্চা" বিভাগে করেছেন (11 পয়েন্ট)
আমার মাথা থেকে নিয়ে পা পর্যন্ত সমস্ত শরীর চুলকায় এবং হাত ও পায়ের চামড়া উঠে।এখন আমি কিভাবে এই রোগ থেকে রেহাই পেতে পারি এবং কোন ঔষুধ সেবন করলে বা লাগালে দ্রুত সুস্থ পারবো।

1 উত্তর

0 টি ভোট
করেছেন (173 পয়েন্ট)
অনেকের শীতের সময় হাতের পায়ের চামড়া ওঠে। এটাকে কিছুটা স্বাভাবিক ধরে নেওয়া যায়। তবে অনেকের সারা বছর হাত পায়ের চামড়া ওঠে, এটাকে স্বাভাবিক ধরে নেওয়া যায় না। এটা মুলত কয়েকটা কারণে হয়ে থাকে। প্রথমেই জীনগত বা বংশগত কারণ। তারপরে পুষ্টিহিনতা, এবং সবশেষে পরিচর্যার অভাবে। কারণ ৩ টির ভেতর যেটাই হোক না কেন। সমস্যা চোখের সামনে ধরে রাখলে কোনো কিছুই আর ভালো লাগে না। এতে মানসিক চাপ অনেক বেড়ে গিয়ে, মন খারাপ তৈরি হতে থাকে। আপনি হয়তো জানেন না যে সামান্য একটু খেয়াল বা যত্ন নিলেই এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। 

হাতের জন্য তিলের তেল, গ্লিসারিন ও গোলাপজল সমপরিমাণে মিশিয়ে ব্যবহার করতে পারেন। তিলের তেলের পরিবর্তে জলপাইয়ের তেলও ব্যবহার করতে পারেন। পায়ের জন্য মধু, গ্লিসারিন, লেবুর রস ও ঘৃতকুমারীর রস একসঙ্গে মিশিয়ে লাগাতে পারেন। রাতে ঘুমাতে যাবার ৩০ মিনিট আগে লাগিয়ে রাখুন। তারপর পাতলা মোজা পড়ে ঘুমাতে যান।

প্রতি বছর একটা নিদিষ্ট সময় এটা হয়ে থাকে। আমাদের দেহের পুরানো বা মরা চামড়াগুলো উঠে যায়। আত পার্লারে গিয়ে অথবা বাড়িতে বসেই পেডিকিওর, মেনিকিওর করলে উপকার পাওয়া যেতে পারে। আবার মেহেদি দিলেও অনেক সময় এই সমস্যা ভালো হয়ে যায়

সয়াবিন গুঁড়ো হাত ও পায়ের জন্য খুবই ভালো। বাজার থেকে সয়াবিন কিনে কড়াইয়ে তেল দিয়ে হালকা আঁচে কিছুক্ষণ নেড়ে গুঁড়ো করে নিন। এবার সেটা দিয়ে হাত ও পা ধুতে পারেন। এটা পরিষ্কারের পাশাপাশি ময়েশ্চারাইজারের ভূমিকা রাখে। এভাবে হাত-পা পরিষ্কার রাখলে এবং রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে গ্লিসারিন ব্যবহার করলে চামড়া উঠা বন্ধ করা যায়।

বেশীক্ষণ হাত পা ভেজা রাখবেন না। পানির কাজ শেষ হলেই হাত মুছে শুকিয়ে ফেলুন। গ্লিসারিন মাখুন ঘুমানর আগে এবং গসল শেষ করে হাত ভেজা থাকা পরে। আর প্রতিদিনের খাদ্যতালিকাতে সুষম খাদ্য রাখুন, এতে করে পুষ্টিহিনতার কারনে চামড়া ওঠা বন্ধ হবে। আর যদি এসব করেও উপকার না প্যাঁ তাহলে চিকিৎসক তোঁ আছেই

এছাড়া হালকা গরম পানির সঙ্গে লবণ এবং শ্যাম্পু মিশিয়ে হাতের তালুর পরিচর্যা করলে ভালো ফলাফল পেতে পারেন। গরম পানির মধ্যে আধা চামচ শ্যাম্পু, একটু লবণ দিয়ে হাত পা ডুবিয়ে রাখতে পারেন ১০-১৫ মিনিট। ব্রাশ দিয়ে এরপর হাত ও পা ঘষে নিন। মরা চামড়া উঠে যাবে।

তালুর খসখসে ভাব বংশগত কারণে হতে পারে; সে ক্ষেত্রে কোনো প্রতিকার নেই। তবে শুষ্কতাজনিত কারণে হাতের তালু খসখসে হয়ে গেলে অ্যালমন্ড অয়েল ও তিলের তেলের মিশ্রণ ব্যবহার করতে পারেন। লেবু ও মধুর মিশ্রণ, ডিমের সাদা অংশের সঙ্গে দুধ ও মধুর মিশ্রণ, পাকা কলা ইত্যাদি ব্যবহার করলেও তালুর খসখসে ভাব দূর হয়ে যাবে।

1,383 টি প্রশ্ন

1,347 টি উত্তর

226 টি মন্তব্য

416 জন সদস্য

ইপ্রশ্ন ডটকম হল মাতৃভাষায় সহজে সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য অনলাইন মাধ্যম। যেখানে আমাদের দৈনন্দিন জীবনে বিভিন্ন ধরনের কৌতুহল মূলক অজানা প্রশ্ন জিজ্ঞাসা ও উত্তর খুজে পাওয়ার পাশাপাশি অন্যদের প্রশ্নে উত্তর প্রদান করে, নির্বিশেষে সহজে সমস্যা সমাধানের একটি নির্ভরযোগ্য প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তোলায় দৃড় অঙ্গীকার বদ্ধ।

    এই মাসে এখনও কেও সেরা হিসেবে নির্ধারণ হয়নি ।

    3 জন অনলাইনে আছেন
    0 জন সদস্য 3 জন অতিথি
    আজকের মোট ভিজিটর : 1270 জন
    গত কালকের মোট ভিজিটর : 2683 জন
    মোট ভিজিটর : 303537 জন
    ইপ্রশ্ন - তে প্রকাশিত সকল প্রশ্ন, উত্তরের দায়ভার একান্তই ব্যবহারকারীর নিজের, এক্ষেত্রে কোন প্রশ্নোত্তরে কোনভাবেই ইপ্রশ্ন এর হস্তক্ষেপ নাই।
    ...